শিশুর খাবারঃ যা জানা দরকার

ছোট্ট সোনামণির খাবারদাবার নিয়ে মা-বাবার ভাবনার শেষ নেই। কোন বয়সে কী খাবে ওরা, কতটা পরিমাণ খাওয়ানো দরকার, এসব প্রশ্নের উত্তর জেনে নেওয়া যাক।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগের অধ্যাপক সাঈদা আনোয়ার বলেন, জন্মের পর প্রথম ছয় মাস শিশুকে শুধু বুকের দুধ খাওয়াতে হবে, এই সময়টাতে শিশুকে আলাদাভাবে পানি পান করতে দেওয়ারও প্রয়োজন নেই। ছয় মাস পূর্ণ হওয়ার পর থেকে শিশুকে দিতে হবে বাড়তি খাবার।

ছয় মাস পূর্ণ হওয়ার পর থেকে শিশুকে দিতে হবে বাড়তি খাবার

এই বয়সী শিশুদের খাদ্যাভ্যাস প্রসঙ্গে তাঁর আরও পরামর্শ দেখে নিন।

ছয় মাস থেকে এক বছর বয়সী শিশুদের মায়ের দুধের পাশাপাশি তিন বেলা বাড়তি খাবার দেওয়া প্রয়োজন। তবে এই বয়সেও শিশুর মূল খাবার মায়ের দুধ। অর্থাৎ, বাড়তি খাবারের পরিমাণটা হবে কম। তিন বেলা খাবারের মধ্যে দুবেলা খিচুড়ি বা নরম ভাতের মতো একটু ভারী খাবার দেওয়া যেতে পারে। বাকি এক বেলা হালকা কোনো খাবার (ফলের রস বা নরম ফল, যেমন, কলা) দিতে পারেন। আধা সেদ্ধ ডিম, সবজির স্যুপ বা ছোট মুরগির স্যুপও শিশুর জন্য ভালো। বিভিন্ন পুষ্টি উপাদানমিশ্রিত খাবার বাইরে থেকে কিনে আনার চেয়ে ঘরেই বিভিন্ন পুষ্টিকর উপাদান দিয়ে সুস্বাদু খাবার তৈরি করে দেওয়া ভালো।

এক বছরের বেশি বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে মায়ের দুধের পরিমাণটা ধীরে ধীরে কমিয়ে দিতে হবে। এই বয়সে বাড়তি খাবার প্রয়োজন সারা দিনে পাঁচবার।

কোনো অবস্থাতেই শিশুকে জোর করে খুব বেশি পরিমাণ খাবার খাওয়ানো ঠিক নয়। বাড়ন্ত শিশু কোনো একটি খাবার খেতে পছন্দ না করলে সেটির পরিবর্তে একই পুষ্টিমানের অন্য কোনো খাবার দেওয়া যেতে পারে।

কোনো অবস্থাতেই শিশুকে জোর করে খুব বেশি পরিমাণ খাবার খাওয়ানো ঠিক নয়। বাড়ন্ত শিশু কোনো একটি খাবার খেতে পছন্দ না করলে সেটির পরিবর্তে একই পুষ্টিমানের অন্য কোনো খাবার দেওয়া যেতে পারে। যে শিশুটি খিচুড়ি খেতে চায় না, তাকে নরম ভাতের সঙ্গে ডাল, সবজি, মাছ বা মাংস ভালোভাবে মিশিয়ে খেতে দিতে পারেন।

শিশুকে দুই বছর বয়স পর্যন্ত মায়ের দুধ খাওয়াতে হবে। দুই বছর পূর্ণ হওয়ার আগ পর্যন্ত শিশুকে গরুর দুধ বা কৌটার দুধ খাওয়ানো যাবে না।

বারডেম জেনারেল হাসপাতালের জ্যেষ্ঠ পুষ্টি কর্মকর্তা শামসুন্নাহার নাহিদ দিলেন আরও কিছু পরামর্শ। তিনি বলেন, ‘যে সময়টাতে শিশুকে মায়ের দুধের পাশাপাশি অন্যান্য খাবার খাওয়ানো হয়, সে সময়টাতে শিশুর অন্যান্য খাবারের ঘনত্বও মায়ের দুধের মতো হওয়া প্রয়োজন।’

শিশুকে শক্ত খাবার, যেমন বিস্কুট বা শক্ত ভাত দেওয়া ঠিক নয়। শক্ত খাবার খেতে গেলে শিশুর গলায় আটকে যেতে পারে।

একটু একটু করে শিশুর খাবারের পরিমাণ বাড়াতে হবে। প্রথম দিকে প্রতিবেলায় স্যুপের বাটির এক-তৃতীয়াংশ পরিমাণ খাবার দেওয়া যেতে পারে। ধীরে ধীরে খাবারের পরিমাণ আধা বাটি, পৌনে এক বাটি এবং এভাবে এক বাটি পর্যন্ত আনা যেতে পারে।

একটু একটু করে শিশুর খাবারের পরিমাণ বাড়াতে হবে

উদ্ভিজ্জ আমিষ শিশুর জন্য বেশি উপযোগী। তাই মাছ বা মাংস শুরু করার আগে শিশুর খাবারে ডাল যোগ করুন। খিচুড়ি তৈরি করতে সমপরিমাণ চাল ও ডাল নেওয়া উচিত। ছয় মাস বয়সী শিশুদের সামান্য ডিমের কুসুম দেওয়া যায়, এরপর কুসুমের পরিমাণটা ধীরে ধীরে বাড়াতে হবে। সেদ্ধ বা পোচ করা ডিমের কুসুম, দুটিই শিশুদের উপযোগী।

এর বেশ কিছুদিন পর থেকে ডিমের সাদা অংশ খাওয়ানো শুরু করতে পারেন। ছয় মাস বয়স থেকে শিশুকে পানি পান করানো উচিত।

নুডলস স্যুপ বা জাউভাতও দিতে পারেন শিশুকে। যেকোনো একটি খাবার শুরু করার পর একটানা তিন থেকে পাঁচ দিন সেই খাবারটি দেওয়া উচিত, ওই খাবারটিতে শিশুর অ্যালার্জি আছে কি না বা সেটি খেলে শিশুর অন্য কোনো সমস্যা হয় কি না, তা এই সময়ের মধ্যেই ধরা পড়বে।

টকজাতীয় ফল শিশুদের দেওয়া ঠিক নয়। মোটামুটি নয় মাস বয়সের আগে শিশুদের টকফল দেওয়া উচিত নয়। মিষ্টি ফলগুলো শিশুদের জন্য বেশি উপযোগী।

শিশুদের খাবারে বেশি লবণ দেওয়া ঠিক নয়

শিশুদের খাবারে বেশি লবণ দেওয়া ঠিক নয়। আর চিনির পরিবর্তে মধু বা গুড় ব্যবহার করা ভালো।

গড়ে এক বছর বয়সের মধ্যেই শিশুরা পরিবারের বাকিদের মতো খাবার খেতে পারে, তবে এটি নির্ভর করে শিশুর দাঁত ওঠার সময়ের ওপর। যে শিশুর আগে দাঁত উঠবে, সে একটু আগে আগেই স্বাভাবিক খাবারে অভ্যস্ত হতে পারবে।

আর যেসব শিশুর দাঁত উঠতে একটু দেরি হয়, তাদের সম্পূর্ণ স্বাভাবিক খাবারে অভ্যস্ত হতে একটু সময় লাগলেও ভয়ের কিছু নেই।

সূত্রঃ প্রথম আলো

 

বাড়ন্ত শিশুর জন্য জরুরি ৬ খাবার

একটি পুষ্টিগুণে ভরপুর খাদ্যতালিকা বাড়ন্ত শিশুর জন্য খুব জরুরি। বাড়ন্ত বয়সে শরীরে কিছু প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও মিনারেলের প্রয়োজন হয়।

তবে ব্যস্ত জীবনযাপনের জন্য বাবা-মা হয়তো শিশুকে স্বাস্থ্যকর খাবারগুলো খাওয়াতে পারেন না। এতে শিশু ঝুঁকে পড়ে ফাস্টফুডের দিকে। আর ফাস্টফুড, প্রক্রিয়াজাত খাবার শিশুর শরীরে বাজে প্রভাব ফেলে। এর থেকে বাজে চর্বি, চিনির মতো কিছু উপাদান ছাড়া আর কিছুই পাওয়া যায় না। এতে শিশুর ওজন বেড়ে যায়। এটি পরে বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাই এসব খাবার এড়িয়ে শিশুকে স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ানো খুব দরকার।

স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট টপটেন হোম রেমিডি জানিয়েছে শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় কিছু খাবারের নাম।

১. দুধ

7 essential foods for a growing baby

দুধ শিশুদের জন্য খুবই উপকারী একটি খাবার। ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস দুধের দুটি জরুরি মিনারেল। এগুলো স্বাস্থ্যকর হাড়, দাঁত, নখের জন্য জরুরি। এ ছাড়া দুধের মধ্যে রয়েছে প্রয়োজনীয় পুষ্টি, যেমন : প্রোটিন, জিংক, ভিটামিন এ, বি২ ও বি১২। রয়েছে আয়োডিন, নায়াসিন ও ভিটামিন বি৬।

প্রতিদিন দুই গ্লাস দুধ বাড়ন্ত বয়সের শিশুদের জন্য উপকারী। যদি শিশু শুধু দুধ খেতে পছন্দ না করে, এর মধ্যে বাদাম দিতে পারেন। এ ছাড়া দুধের তৈরি পুডিং বা কাস্টার্ড তৈরি করেও শিশুকে খাওয়ানো যেতে পারে।

২. ডিম

বাড়ন্ত বয়সের শিশুদের জন্য ডিম খুবই উপকারী একটি খাবার। এতে রয়েছে উচ্চ পরিমাণ প্রোটিন। আর প্রোটিন বাড়ন্ত বয়সের শিশুদের জন্য জরুরি। ডিমের মধ্যে রয়েছে বি ভিটামিন। এটি মস্তিষ্কের গঠন এবং কার্যক্রমের জন্য দরকার। পাশাপাশি ডিমের মধ্যে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড, ভিটামিন ডি, ফোলেট, জিংক, আয়রন ও সেলেনিয়াম। সপ্তাহে কয়েক দিন সকালের নাশতায় শিশুকে ডিম খাওয়াতে পারেন। এটি শিশুকে সারা দিনের কাজ করার জন্য শক্তি জোগাবে।

৩. ব্রকলি

এই সবজি ক্যালসিয়ামের ভালো উৎস। এটি দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে এবং কোষের ক্ষতি প্রতিরোধে কাজ করে। এই স্বাস্থ্যকর সবজিটির মধ্যে রয়েছে আঁশ, যা বাড়ন্ত শিশুর জন্য জরুরি। রয়েছে আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ফসফরাস, জিংক, পটাশিয়াম, ফলিক এসিড। এটি বি ভিটামিনেরও ভালো উৎস; এতে স্নায়ু পদ্ধতি ভালো থাকে।

শিশুকে প্রতিদিন ব্রকলি খেতে দিন। রান্না করে, সালাদের সঙ্গে বা জুস করেও খেতে দিতে পারেন। আর যদি এগুলো খেতে পছন্দ না করে, স্যুপও খাওয়াতে পারেন।

৪. দ‌ই

দই শিশুর জন্য বেশ উপকারী। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং হজমে সাহায্য করে। এর মধ্যে রয়েছে ক্যালসিয়াম, প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ভিটামিন বি, জিংক ও ফসফরাস। প্রতিদিন দই খেলে হাড় ভালো থাকে। এটি শক্তিও জোগান দেয়। যদি দই খেতে শিশু পছন্দ না করে, এর মধ্যে ফল বা চকলেট চিপস দিতে পারেন।

৫. মিষ্টিআলু

বাড়ন্ত বয়সের শিশুর জন্য মিষ্টিআলু খাওয়া প্রয়োজন। এর মধ্যে অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে। এতে আছে বেটা ক্যারোটিন ও ক্যারোটিনয়েড। এগুলো চোখ ভালো রাখার জন্য দরকার। এ ছাড়া এটি ভিটামিন এ, সি ও ই, পটাশিয়াম, ফোলেট, ক্যালসিয়াম, আয়রন ও আঁশের ভালো উৎস। অনেক শিশু মিষ্টিআলু পছন্দ করে এর স্বাদের জন্য। একে সেদ্ধ করে বা রান্না করে খাওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া মিষ্টিআলুর চিপস বানিয়েও শিশুকে খাওয়াতে পারেন।

৬. মাছ

বাড়ন্ত শিশুর জন্য প্রোটিন জরুরি। মাছ প্রোটিনের ভরপুর একটি খাবার। পাশাপাশি এর বড় সুবিধা হলো এটি লো ফ্যাট। এর মধ্যে ভিটামিন বি এবং প্রয়োজনীয় মিনারেল রয়েছে। পাশাপাশি মাছের মধ্যে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড। এটি মস্তিষ্কের বৃদ্ধি ভালো করে এবং বিষণ্ণতা কাটাতে কাজ করে। স্যামন, টুনা শিশুদের জন্য বেশ ভালো মাছ। এ ছাড়া ছোট ছোট মাছ, যেমন–মলা, ঢেলা ইত্যাদি শিশুর জন্য ভালো।

সূত্রঃ এনটিভি

শিশুর পরিপূরক খাবার | বেবির সুস্থতার জন্য জেনে নিন ৮টি টিপস!

আমাদের দেশের বেশির ভাগ মায়েদেরই ধারণা যে, শিশু ছোট অবস্থায় কোন শক্ত বা আধা শক্ত খাবার খেতে পারে না এবং সেজন্য তাদের প্রায় এক বছর পর্যন্ত এ ধরনের খাবার দেয়া যায় না। কিন্তু এ কথা মায়েদের জানতে হবে যে, শুধু বুকের দুধে এ বয়সী শিশুর চাহিদা মেটে না। এর সাথে শিশুর পরিপূরক খাবার দরকার। কারণ, শিশু বাড়ছে এবং সেই সাথে তার প্রয়োজনও বাড়ছে। শিশুর শরীরের প্রয়োজন অনুযায়ী যতটুকু দুধের দরকার ততোটুকু মায়ের শরীরে তৈরিও হয় না।

তাই শিশুর জন্মের ছয় মাস পর তাকে মায়ের দুধের পাশাপাশি বাড়তি খাবার দিতে হবে। মায়ের দুধে ভিটানিন সি ও লৌহের পরিমাণ কম থাকে। গরুর দুধেও লৌহের পরিমাণ বেশ কম থাকে। তাই ছয় মাস পূর্ণ হলেই শিশুকে বাড়তি খাবার দিন। হঠাৎ নতুন খাবার তারা অপছন্দ করতে পারে, তাই ধীরে ধীরে অভ্যাস গড়ে তুলুন। এভাবে দুধ ছাড়া শরীরের পুষ্টির জন্য শিশুকে যে অন্য খাবার দেয়া হয় তাকেই পরিপূরক খাবার বলা হয়। তাহলে জেনে নিন শিশুর পরিপূরক খাবার কোনগুলো!

পরিপূরক খাবার যেমন হতে পারে

১. একটি পুরো বা আধা সেদ্ধ ডিম।

২. বিভিন্ন শাক ও সবজি যেমন- পালং শাক, লাল শাক, ডাটা শাক, পুইঁ শাক এবং অন্যান্য গাঢ রঙের শাক, শিম, পেঁপে, গাজর, মিষ্টি কুমড়া, ফুলকপি ইত্যাদি সেদ্ধ করে চটকিয়ে।

৩. আম, বাতাবি লেবু, আনারস, কমলালেবু অথবা যে কোনো দেশী ফলের রস।

৪. দুধ দিয়ে রান্না করা সুজি অথবা সাগু।

৫. নরম রুটি দুধ অথবা ডালে ভিজিয়ে চটকিয়ে।

৬. সেদ্ধ আলু ও ডাল চটকিয়ে।

৭. নরম ভাতের সাথে ডাল।

৮. কাটাঁ ছাড়া মাছ, মুরগীর কলিজা সেদ্ধ করে চটকিয়ে দেওয়া যায়।

শিশুকে খাবার খাওয়ার অভ্যাস করানোর পদ্ধতি

১) একটি খাবার এক বারে অভ্যাস করাতে হবে।

২) এক চামচ পরিমাণ দিয়ে শুরু করুন। ধীরে ধীরে পরিমাণ বাড়ান।

৩) প্রথম অবস্থায় খাবারটি বেশি নরম ও সম্ভব হলে তরল করে দিন।

৪) খাবার অবশ্যই টাটকা ও তাজা হতে হবে।

৫) অতিরিক্ত মসলা ও ঝাল বর্জিত হতে হবে।

৬) সম্ভব হলে আকর্ষণীয় পাত্রে উপস্থাপন করুন।

৭) জোর করা ঠিক হবে না। শিশুর আগ্রহ সৃষ্টি করতে হবে।

৮) শিশুর বাটি, থালা, চামচ পরিষ্কার রাখতে হবে। যিনি খাওয়াবেন, তিনি অবশ্যই হাত ধুয়ে নিবেন।

একথা বলাই বাহুল্য যে শিশুকে যখন নতুন খাবার দেয়া হবে তখন খুব স্বাভাবিকভাবেই সে নতুন খাবারটি পছন্দ করবে না। কিন্তু মায়েদের ধৈর্য হারালে চলবে না। অল্প অল্প করে প্রতিদিন চেষ্টা করতে হবে। প্রয়োজনে খেলনা বা অন্য জনের সহায়তা নিন। না খেলে বা অল্প খেলে বাকি খাবারটি রেখে দিয়ে তাকে দুধ দিন। মনে রাখবেন, শিশু যতই পরিপূরক খাবার খাক তাতে বুকের দুধের চাহিদা মেটে না। তাই দুই বছর পর্যন্ত তাকে মায়ের বুকের দুধ খেতে দিন। আপনার শিশু সুস্থ ও স্বাস্থ্যবান হয়ে বেড়ে উঠুক, এটাই কামনা।

ছবি- সংগৃহীত